Tuesday, January 21

আশফাক আহমদকে জড়িয়ে মিথ্যা অপপ্রচারের বিরুদ্ধে ৭ চেয়ারম্যানের বিবৃতি



সিলেট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি, ক্লিন ইমেজের রাজনীতিবিদ ও জনপ্রতিনিধি আশফাক আহমদকে জড়িয়ে মিথ্যা অপপ্রচার ও আপত্তিজনক মন্তব্যের প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছেন সদর উপজেলার ৭ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান।
মঙ্গলবার ৮ নং কান্দিগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নিজাম উদ্দিন, ৬ নং টুকের বাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহীদ আহমদ, ২ নং হাটখোলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন, ৪ নং খাদিমপাড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আফসর আহমদ, ৩ নং খাদিমনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দিলোয়ার হোসেন, ১ নং জালালাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মনফর আলী, ৫ নং টুলটিকর ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান রাজা মিয়া এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন- একজন সৎ-আদর্শবান জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিবিদ হিসেবে সিলেটের সর্বমহলে সমাদৃত আশফাক আহমদ। অবহেলিত সদর উপজেলাকে একটি আলোকিত উপজেলায় রুপান্তরিত করতে তিনি দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। দুই দুই বার তাকে সদর উপজেলার সাধারণ মানুষ বিপুল ভোটে নির্বাচিত করেছেন। সদর উপজেলার মানুষের কাছে জনপ্রিয়তার শীর্ষে থাকায় তাঁর বিরুদ্ধে একটি কু-চক্রি মহল দীর্ঘদিন থেকে মিথ্যা অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে। তাকে হেয় করার জন্য নানা অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে।
এরই ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবে সোমবার বাদাঘাটের চেঙ্গেরখাল নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করার সময় অ্যাডভোকেট নূরে আলম সিরাজীকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সিরাজাম মুনিরা। জেলা প্রশাসকের কাছে এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে তিনি এ অভিযান চালিয়েছেন। এখানে উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদের কোন সংশ্লিষ্টতা নাই। অথচ একটি সুযোগ সন্ধানী কু-চক্রি মহল তার জনপ্রিয়তায় ইর্ষান্বিত হয়ে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য তাকে জড়িয়ে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। যা কোনভাবে গ্রহণযোগ্য নয়। একজন সম্মানিত ব্যক্তিকে গুটিকয়েক মানুষ উদ্দেশ্যে প্রণোদিতভাবে হেয় করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ আমরা জানাচ্ছি। শান্তিপ্রিয় একটি ঐতিহ্যবাহী জনপদ হিসেবে পরিচিত সদর উপজেলাকে অশান্ত করার পায়তারা ও অপতৎপরতা থেকে বিরত থাকার জন্য আমরা অনুরোধ জানাচ্ছি।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *