Wednesday, January 22

দৃষ্টিহীন মানবাধিকার কর্মী মাসুকুর রহমান বিদেশে চিকিৎসার জন্য কেয়া চৌধুরীর আবেদন



ওসমানীনগর প্রতিনিধি::দৃষ্টিহীন মানবাদিকার কর্মী ও সাংবাদিক মাসুকুর রহমান উন্নত চিকিৎসার জন্য উন্নয়নশীল দেশে চিকিৎসার অনুমতি দেয় জাজীয় চক্ষু হাসপাতাল। তারই ধারাবাহিকতায় উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রশাসন ও মন্ত্রনালয় ২০১৬ সালের জানুয়ারী মাসে উদ্যোগ গ্রহন করেন। কিন্তু দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও বিদেশে চিকিৎসার ব্যবস্থা হয়নি মাসুকুর রহমানের। পরবর্তীতে দৃষ্টিহীন মানবাধিকার কর্মি মাসুকুর রহমানের বিদেশে চিকিৎসা নিশ্চিতের জন্য হবিগঞ্জ-সিলেট-৩২৮ আসনের সংদস সদস্য আমাতুন কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী দৃষ্টিহীন মানবাধিকার কর্মী মাসুকুর রহমানের চিকিৎসালয়ে ভিসা প্রসেসিংয়ের ব্যাপারে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মহা পরিচালকের আবেদন করেন।
জানা গেছে, মৌলভীবাজার সদর থানার ব্রাহ্মণগ্রাম (মুক্তিনগর) গ্রামের মৃত কুটি মনার পুত্র দৃষ্টিহীন মানবাদিকার কর্মী ও সাংবাদিক মাসুকুর রহমান উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রশাসন ও মন্ত্রনালয় ২০১৬ সালের জানুয়ারী মাসে উদ্যোগ গ্রহন করেন। এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে আবেদন করলে ডিজি লুৎফুর রহমান দৃষ্টিহীন মাসুকুর রহমানের সাক্ষাত নিয়ে চিকিৎসা পত্র দেখে আমেরীকার নর্থ ওয়েল হাসপাতালে বুকিং ও সমাজ কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের অনুমতি নিয়ে আসার জন্য বলেন। ২০১৬ সালের ৮ই সেপ্টেম্বর ১০৬ নং স্মারকে অতি দ্রুত চিকিৎসালয়ে প্রেরণের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে আবেদন প্রেরণ করেন সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে। একই সাথে মৌলভীবাজার-৩ আসনের সংদস সদস্য সায়রা মহসিন মাসুকুর রহমানের চিকিৎসার উদ্যোগ গ্রহণের জন্য সমাজ কল্যাণ মন্ত্রনালয়ে ডিও লেটার প্রদান করেন। পরবর্তীতে ডিজি কনস্যুলার অংং-১৭৫ স্মারকে গত বছর ২ ফেব্রুয়ারী মাসুকুর রহমানের সাক্ষাৎ নিয়ে এম.আর.পি অফিসারের সাথে মুসুকুর রহমানকে মিলিয়ে দেন। এম.আর.পি অফিসার তার সাক্ষাৎ নিলেও এখন পর্যন্ত চিকিৎসালয়ে প্রেরণ করছেন না। এমতাবস্থায় মাসুকুর রহমানের ছয় সদস্যের একটি পরিবার চিকিৎসা না হওয়ায় চরম অসহায় হয়ে পড়েন।
সাম্পতিকালে দৃষ্টিহীন মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাধিক মাসুকুর রহমানকে অতিদ্রুত চিকিৎসালয়ে প্রেরণের জন্য পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মহা পরিচালকের বরাবর আবেদন প্রদান করেন, হবিগঞ্জ-সিলেট-৩২৮ আসনের সংদস সদস্য আমাতুন কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। এদিকে দৃষ্টিহীন মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক আমেরীকার বুকিংকৃত হাসপাতালে অনুমতি প্রদানের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার নিকট আকুল আবেনদ জ্ঞাপন করেন।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *