Tuesday, January 21

বালাগঞ্জে শিক্ষা কমিটির সভায় জাল স্বাক্ষর: সত্যতা পেয়েছেন কর্মকর্তা



শিপন আহমদ::বালাগঞ্জের পূর্ব পৈলনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্বাক্ষর জাল করে ভূয়া রেজুলেশনের মাধ্যমে পরিচালনা কমিটি গঠন ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কমিটির সভায় অনুমোদনের বিষয়ে অভিযোগের তদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। দক্ষিন সুরমা উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ছানাউল হক সানি মঙ্গলবার সরেজমিনে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে তদন্ত কাজ সম্পন্ন করেন। তদন্তকালে অভিযোগকারী ব্যক্তিগণ,অভিযুক্ত ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গণ্যমান্য লোকজন উপস্থিতিত ছিলেন এসময় তদন্ত কর্মকর্তা তদন্ত সংশ্লিষ্টদের লিখিত জবানবন্দি গ্রহন করেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য সিতার মিয়া ও পৈলনপুর গ্রামের আবুল কালাম, আব্দুল কদ্দুছ, প্রবীন মুরব্বী আছলম মিয়াসহ তদন্তকালে উপস্থিত থাকা অনেকেই জানান, তদন্তে পৈলনপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দক্ষিণা রঞ্জন দেবনাথ স্কুল পরিচালনা কমিটি গঠনের বিষয়ে বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হন। এছাড়া ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কমিটি গঠনে কয়েকজনের স্বাক্ষর জালিয়াতি এবং ভূয়া রেজুলেশনের মাধ্যমে কমিটি প্রস্তুত করার বিষয়টি তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে অকপটে স্বীকারও করেছেন। তদন্ত কর্মকর্তা প্রধান শিক্ষকের স্বীকারোক্তিমূলক বক্তব্য অভিযোগকারী ব্যক্তিগণের স্ব-স্ব জবানবন্দি লিখিত আকারে গ্রহন করেন। স্কুলে শিক্ষার মান উন্নয়নে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানানো হয়।
তদন্তকারী কর্মকর্তা দক্ষিণ সুরমা উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ছানাউল হক সানি বলেন, তদন্তে স্বাক্ষর জালিয়াতি করে স্কুল পরিচালনা কমিটি গঠনের বিষয়টি প্রাথমিক ভাবে প্রমানিত হয়েছে। তদন্ত সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে পাওয়া বক্তব্যগুলো পর্যালাচনা করে দ্রুত প্রতিবেদন দেয়া হবে।
প্রসঙ্গত, পৈলনপুর স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দক্ষিণা রঞ্জন দেব নাথ স্থানীয় ইউপি সদস্য, বিদ্যালয়ের দাতা সদস্যসহ একাধিক ব্যাক্তিদের স্বাক্ষর জাল করে ভূয়া রেজুলেশনের মাধ্যমে স্কুল পরিচালনা কমিটি প্রস্তুত করে অনুমোদনের জন্য তা উপজেলা শিক্ষা অফিসে দাখিল করেন। কোনো ধরনের পর্যালোচনা ছাড়াই গত ১২ ফেব্রুয়ারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কমিটি সভায় ওই কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। বিষয়টি গত ৬ মার্চ ‘বালাগঞ্জে শিক্ষা কমিটির সভায় জাল স্বাক্ষরে কমিটি অনুমোদন’ শিরোনামে দৈনিক সবুজ সিলেটে সংবাদ প্রকাশিত হয়।। সংবাদ প্রকাশের পর ১২ মার্চের উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কমিটির সভায় অনুমোদিত নিয়মনীতি পরিপন্থি একাধিক সিদ্ধান্ত পরবর্তী সভায় সমন্বয় করা হলেও জাল স্বাক্ষরে অনুমোদিত কমিটির বিষয়ে কোনো সুরাহা হয়নি। তবে উপজেলা শিক্ষা অফিস থেকে ওই কমিটির কার্য্যক্রম স্থগিত রাখার জন্য ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে মৌখিক নির্দেশনা দেয়া হয়। কিন্তু অভিযোগটি তদন্তাধীন থাকাবস্থায় ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে বিতর্কিত ওই কমিটি দিয়ে স্কুল পরিচালনা করায় অভিবাবকদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে পূর্ব পৈলনপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড সদস্য সিতার আলী, ৪ নং ওয়ার্ড সদস্য শিহাব উদ্দিন ও পৈলনপুর স্কুলের অভিভাবক বেলাল আহমদ স্বাক্ষরিত সিলেট জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নিকট বিষয়টি নিয়ে লিখিত অভিযোগ দেন। এবং গত ২৬ এপ্রিল “বালাগঞ্জে স্বাক্ষর জাল করে কমিটির অনুমোদনের অভিযোগের তদন্ত শুরু” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্য্যালয় থেকে অভিযোগটির তদন্তের দ্বায়িত্ব পেয়ে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ছানাউল হক সানি মঙ্গলবার সরেজমিনে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হয়ে তদন্ত সম্পন্ন করেন। তদন্তে স্বাক্ষর জালিয়াতির বিষয়ে প্রাথমিক সত্যতা পান।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *