Thursday, January 30

ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনায় চা শ্রমিক ইউনিয়নের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন



কমলগঞ্জ প্রতিনিধি::
ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা আর কঠোর পুলিশি নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে দেশের মোট ৭টি ভ্যালিতে (অঞ্চলে) বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (২৪ জুন) সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীনভাবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ২৩০টি চা বাগানের নিবন্ধিত নারী ও পুরুষ চা শ্রমিকরা কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, ভ্যালি কমিটির সভাপতি ও সম্পাদকমণ্ডলী ও বাগান পঞ্চায়েত কমিটির প্রতিনিধি নির্বাচনে ভোট প্রদান করেন।

সকাল সাড়ে ১০টায় মনু-দলই ভ্যালির শমশেরনগর চা বাগানে গিয়ে দেখা যায়, সারিবদ্ধভাবে তিনটি লাইনে নারী-পুরুষ ভোটাররা ভোট প্রদানের জন্য লাইনে দাঁড়িয়ে আছেন। এ কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার সহকারী উপজেলা মৎস্য অফিসার মো. আসাদ উল্ল্যাহ জানান, সকাল পৌনে ১১টা পর্যন্ত প্রায় ত্রিশ শতাংশ ভোটার ভোট প্রদান করেছেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কার্যালয় শ্রীমঙ্গলস্থ লেবার হাউজ সূত্রে জানা যায়, দেশ স্বাধীনের পর টানা ৩৪ বছর একটি পক্ষ দ্বারা চা শ্রমকি ইউনিয়ন পরিচালিত হলেও সে সময় সাধারণ চা শ্রমিকরা ভোট প্রদান করে তাদের প্রতিনিধি নির্বাচন করতে পারতেন না। ২০০৮ সালে সংগ্রাম কমিটি গঠন করে ব্যাপক আন্দোলনের মাধ্যমে সে বছর প্রথমবার গণতান্ত্রিক উপায়ে চা শ্রমিকরা ২৬ অক্টোবর ভোট প্রদান করে প্রথমে পঞ্চায়েত কমিটি ও ভ্যালি কমিটির প্রতিনিধি নির্বাচন করেছিল। ২ নভেম্বর রোববার বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে সংগ্রাম কমিটির সভাপতি মাখন লাল কর্মকার ও সাধারণ সম্পাদক রাম ভজন কৈরীর প্যানেল নির্বাচিত হয়েছিলেন।

নির্বাচিত এই কমিটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে পরের মেয়াদে ২০১৪ সালে সরাসরি ৯৫ হাজার ৫০০ চা শ্রমিকের ভোটে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটি নির্বাচন করেছিল। ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে এ কমিটির মেয়াদ শেষ হলেও নানা জটিলতায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। অবশেষে শ্রম অধিদপ্তরের মাধ্যমে চলতি বছরের ২৭ মে চা শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচনের তফশিল ঘোষণার মাধ্যমে ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের কার্যক্রম শুরু হয়। তফশিল অনুযায়ী রোববার (২৪ জুন) সারা দেশের ৭টি ভ্যালিতে(অঞ্চলে) সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একযোগে ভোট গ্রহণ হয়।

নির্বাচনে কেন্দ্রীয় কমিটি গঠনে মাখনলাল কর্মকার ও রাম ভজন কৈরী প্যানেল ও বিজয় প্রসাদ বুনার্জি ও সীতারাম অলমিক প্যানেলে সভাপতি ও সম্পাদক মণ্ডলী, শিউধনী কুর্মির নেতৃত্বে একটি সভাপতি মণ্ডলী ও গীতারানী কানুর নেতৃত্বে সম্পাদক মন্ডলীর আরও একটি প্যানেলে ৪টি করে পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। একই সাথে ২৩০টি চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটি ও ৭টি ভ্যালি কমিটিরও ভোট প্রদান করছে চা শ্রমিক ভোটাররা।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন কার্যালয় সূত্রে আর জানা যায়, বৃহত্তর সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চল মিলিয়ে ৭টি ভ্যালিতে সর্বশেষ তালিকা অনুযায়ী মোট ৯৮ হাজার ৭৫২ জন ভোটার ভোট প্রদান করছে।

এদিকে কমলগঞ্জ উপজেলার ২২টি চা বাগান ও কুলাউড়া উপজেলার চাতলাপুর চা বাগান নিয়ে মোট ২৩টি চা বাগান নিয়ে মনু-ধলই ভ্যালিতে ১৫ হাজার ৫২টি ভোটের জন্য ভ্যালি কমিটিতে সভাপতি পদে ধনা বাউরী, সহসভাপতি পদে গায়ত্রী রানী ও সাধারণ সম্পাদক পদে নির্মল দাশ পাইনকা রিক্সা প্রতীকে, আবার সভাপতি পদে সীতারাম বীন, সহসভাপতি পদে আলোমনি রবিদাস ও সম্পাদক কুশল চাষা আম প্রতীকে নির্বাচন করছেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী গোপাল নুনিয়া গোলাপ ফুল প্রতীকে ও প্রদীপ কালোয়ার কাঁঠাল প্রতীকে নির্বাচন করছেন।

সহকারী রিটার্নিং অফিসার কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক রোববার বেলা ২টায় বলেন, ৭টি ভ্যালিতে সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রি-বার্ষিক নির্বাচনের ভোট প্রদান অনুষ্ঠিত হয়। সার্বিক নিরাপত্তার জন্য প্রতি কেন্দ্রে আনসার সদস্যদের পাশাপাশি পুলিশও মোতায়েন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *