Friday, January 17

মুসলমানদের নেক আমল থেকে দূরে রাখার চেষ্টা যারা করে তারা শয়তানেরই দোসর – মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী



বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর সভাপতি হযরত মাওলানা হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী বলেছেন, বর্তমান সময়ে কিছু জ্ঞানপাপী মুসলমানদের নানা বাহানায় নেক আমল থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করছে। শবে বরাতের মতো বরকতময় রাতে মানুষকে আমল থেকে বিরত রাখছে। তারাবীহর নামায বিশ রাকাত থেকে আট রাকাতে কমিয়ে আনছে। এরা আসলে শয়তানেরই দোসর। তিনি বলেন, শবে বরাতে নিজে আমল করতে না পারে। কিন্তু তা অস্বীকার করা কিংবা এ বিষয়ে কোন বর্ণনা নেই বলা মূর্খতার শামিল। কেননা বিশুদ্ধ বহু হাদীসগ্রন্থে এ সম্পর্কে বর্ণনা রয়েছে। এমনকি যারা শবে বরাত অস্বীকার করে তাদের মান্যবর ব্যক্তিরাও এ রাতের ফযিলত স্বীকার করেছেন এবং এ বিষয়ে সহীহ হাদীস রয়েছে তাও স্বীকার করেছেন। শুধু জ্ঞানপাপীদের কথায় আমাদের বিভ্রান্ত না হয়ে শবে বরাত বা এ ধরণের মকবুল রাতসমূহে আমাদের নেক আমলে মনোনিবেশ করতে হবে। পাশাপাশি অপ্রয়োজনীয় ও অনর্থক কাজ ও কুসংস্কার থেকে বেঁচে থাকতে হবে।

২৭ এপ্রিল ’১৮ শুক্রবার সিলেট মহানগর তালামীযের “পবিত্র শবে বরাত ও আমাদের করণীয়” শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন ।

সিলেট মহানগর তালামীযের সভাপতি মাহবুবুর রহমান ফরহাদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক এস এম মনোয়ার হোসেনের পরিচালনায় সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ে প্রধান আলোচকের বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক আখতার হোসাইন জাহেদ। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর প্রশিক্ষণ সম্পাদক মাওলানা নজমুল হুদা খান, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আনজুমানে আল ইসলাহর সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা শেহাব উদ্দিন আলীপুরী, তালামীযে ইসলামিয়ার সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা আজির উদ্দিন পাশা, মুফতি মাওলানা বেলাল আহমদ, সাবেক কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি মাওলানা আতাউর রহমান, বৃন্দাবন সরকারি কলেজের ইংরেজি লেকচারার মাওলানা নোমান আহমদ, মহানগরের সাবেক সভাপতি এনাম উদ্দিন আহমদ, সিলেট পূর্ব জেলা সভাপতি আব্দুল খালিক রুহিল শাহ, প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি জোনের সভাপতি মাসরুর হাসান জাফরী।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সহ সভাপতি আব্দুল আজিম ফারহান, সাংগঠনিক সম্পাদক আতিকুর রহমান শাকের, প্রচার সম্পাদক মারুফ আহমদ, সহ প্রচার সম্পাদক আমিনুল হুদা খান, অর্থ সম্পাদক আলী আহমদ চৌধুরী, অফিস সম্পাদক পিয়ার হাসান, সহ অফিস সম্পাদক শামছুদ্দিন, হোসাইন আহমদ, প্রশিক্ষণ সম্পাদক আজাদ হোসেন, সহ প্রশিক্ষণ সম্পাদক আরিফ হোসেন সামাদ, শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মুশতাক আহমদ, সহ তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম, এইচ.কে. নোমান, সদস্য মাহবুবুর রহমান, হোসাইন আহমদ, সাইদুল ইসলাম, আব্দুর রকিব, সায়েম ইবনে খায়ের,আব্দুল কাদির, জুনেদ আহমদ, এফ.কে জুনেদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *