Sunday, January 19

এক্সক্লুসিভ

বাজি ধরে ৪১টি ডিম খেয়ে যুবকের মৃত্যু

বাজি ধরে ৪১টি ডিম খেয়ে যুবকের মৃত্যু

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক :: একবারে ৫০টি ডিম খাওয়া নিয়ে বন্ধুর সঙ্গে বাজি ধরেছিলেন সুভাস যাদব। শর্ত ছিল, খেতে পারলে তাকে দুই হাজার রুপি দিতে হবে। কিন্তু, কপাল মন্দ। বাজি জেতার কাছাকাছি গিয়ে প্রাণটাই হারাতে হলো তাকে। ভারতের উত্তর প্রদেশের জৌনপুরে ঘটেছে এ ঘটনা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, বন্ধুকে নিয়ে ডিম খেতে বিবিগঞ্জ মার্কেট এলাকায় গিয়েছিলেন ৪২ বছর বয়সী সুভাস। কথাবার্তার একপর্যায়ে তারা বাজি ধরেন, ৫০টি ডিম খেতে পারলে সুভাসকে দুই হাজার রুপি দেবেন তার বন্ধু। শর্তমতো ডিম খাওয়া শুরু করেন সুভাস। ৪১টি ডিম খাওয়া শেষ, আরও একটি খেতে শুরু করেছিলেন। হঠাৎ অজ্ঞান হয়ে পড়ে যান তিনি। তাকে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কিছুক্ষণ পরেই মারা যান সুভাস। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অতিরিক্ত খাওয়ার কারণেই মারা গেছেন ওই ব্যক্তি। পুলিশ জানিয়েছে, এ বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য বা অভিযোগ করেনি মৃতের পরিবার।
আল্লাহর জিকির কল্যাণের দুয়ার খোলে: শায়খ ড. হুজাইফি

আল্লাহর জিকির কল্যাণের দুয়ার খোলে: শায়খ ড. হুজাইফি

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক :: গেল শুক্রবারে মসজিদে নববীতে জুমার খুতবা দিয়েছেন প্রবীণ খতিব ও ইমাম শায়খ ড. আলী আবদুর রহমান আল-হুজাইফি। জুমার খুতবায় তিনি নেক-আমল ও পুণ্যকাজের মাধ্যমে আল্লাহ তাআলার সান্নিধ্য-মাধ্যম অবলম্বনে উৎসাহ দেন। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে বলেন, ‘হে মুমিনগণ! আল্লাহকে ভয় করো, তার প্রতি নৈকট্য-মাধ্যম অন্বেষন করো এবং তার পথে সংগ্রাম করো, যাতে তোমরা সফলকাম হও। (সুরা মায়েদা, আয়াত: ৩৫) অসিলা বা মাধ্যম গ্রহণ হলো- সমগ্র আদেশ কর্মের মাধ্যমে পালন করা। সব ধরনের নিষেধ থেকে বিরত থাকা। এক্ষেত্রে সব রকমের অনুসরণ ও আনুগত্য অন্তর্ভুক্ত। শায়খ হুজাইফি বলেন, জিকির ও আল্লাহর স্মরণ হলো- কল্যাণের উন্মুক্ত দ্বার, শাস্তি থেকে মুক্তির মাধ্যম, পুণ্যার্জনের মহৎ পন্থা ও অমঙ্গল থেকে রক্ষার কারণ। কেননা, জিকির ফরজ-ওয়াজিব ইবাদতকে পূর্ণতা দেয়। আমলের ঘাটতি পূরণ করে। সওয়াব-পুণ্য বিপুল করে দেয়। গুনাহ-ত্রুটি মিটিয়ে দেয়।
কুড়িয়ে পাওয়া টাকা খরচ করে ফেললে করণীয়

কুড়িয়ে পাওয়া টাকা খরচ করে ফেললে করণীয়

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক :: প্রশ্ন: আমি সৌদি আরবের মদিনা মুনাওয়ারায় থাকি। এখানকার একটি দোকানে কাজ করি। এবারের হজের আগে আমি একটি মানিব্যাগ কুড়িয়ে পেয়েছি। ব্যাগটিতে কিছু সৌদি রিয়াল ও বাংলাদেশি টাকা ছিল। কিছুদিন সেগুলো আমার কাছে অক্ষত ছিল। কিন্তু আমার অতি প্রয়োজনের কারণে পরবর্তীতে সেগুলো খরচ করে ফেলি। প্রসঙ্গত, মানিব্যাগে মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করার কোনো মাধ্যম (মোবাইল নম্বর, ই-মেইল বা ঠিকানা ইত্যাদি) পাওয়া যায়নি। এখন আমি অন্যের এই হক থেকে কীভাবে পুরোপুরি মুক্ত হতে পারি? সঠিক উত্তর দিয়ে কৃতজ্ঞ করবেন। উত্তর: যেকোনো ধরনের কুড়িয়ে পাওয়া বস্তু (টাকা-পয়সা ও অন্যান্য জিনিস) আমানত। কুড়িয়ে পাওয়ার পর প্রাপ্তিস্থানের আশেপাশে ও জনসমাগমে ঘোষণা দেওয়া এবং মালিক খোঁজ করে পৌঁছে দেওয়ার সর্বাত্মক চেষ্টা করা আবশ্যক। এমনটি না করে মানিব্যাগটি নিজের কাছে রেখে দেওয়া এবং পরে সে টাকা খরচ করে ফেলা অন্যায় ও গুনাহের কাজ। আপনার প্
বিশ্বজুড়ে ফেসবুক ডাউন

বিশ্বজুড়ে ফেসবুক ডাউন

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক :: ফের ডাউন হয়ে গেল ফেসবুক। যার জেরে বিশ্বজুড়ে বিভ্রাট দেখা দিয়েছে। লগইনে সমস্যার পাশাপাশি ছবি ঠিকমতো লোডিং হচ্ছে না বলে ইউজাররা অভিযোগ করেছেন। ফেসবুকের মালিকানাধীন ছবি শেয়ারিংয়ের জনপ্রিয় অ্যাপ ‘ইন্সটাগ্রাম’ এবং বার্তা আদান-প্রদানের অ্যাপ ‘হোয়াইটস অ্যাপ’ ব্যবহারের ক্ষেত্রেও অনেক ব্যবহারকারী সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম মিরর ও ডেইলি মেইল। ব্রিটিশ গণমাধ্যম 'মিরর জানিয়েছে, আমেরিকা, ব্রিটেন এবং ইউরোপের পাশাপাশি এশিয়ার বিভিন্ন দেশে ফেসবুকে এই সমস্যা দেখা যাচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্ত ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মধ্যে প্রায় ৩৯ শতাংশ লগইন করার সময় সমস্যার মুখে পড়ছেন। এদিকে, ছবি আপলোডের সমস্যার মুখে পড়েছেন ৩৩ শতাংশ ব্যবহারকারী। এ নিয়ে টুইটারে নিজেদের ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন বহু ফেসবুক ব্যবহারকারী। যদিও এর কারণ সম্পর্কে ফেসবুকের পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি। কারিগরি কারণে এই বিভ্রা
বিদিশার ফেসবুকে ‘আমাদের অসমাপ্ত প্রেম’!

বিদিশার ফেসবুকে ‘আমাদের অসমাপ্ত প্রেম’!

এক্সক্লুসিভ
ওসমানীনগরনিউজ ডটকম:: জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদকে নিয়ে তার সাবেক স্ত্রী বিদিশা ফেসবুকে ‘আমাদের অসমাপ্ত প্রেম’ শিরোনামে এক আবেগঘন স্ট্যাটাস দিয়েছেন। বিদিশা তার নিজ ফেসবুক আইডির টাইমলাইনে এই স্ট্যাটাস দেন। এতে লন্ডনে এরশাদের সাথে বিয়েতে আবদ্ধ হওয়া এবং পরবর্তীতে এরশাদের সাথে রোমান্টিক সময় কাটানোর কিছু মুহূর্তের বর্ণনা দেন তিনি। এতে উঠে আসে, ৪০ বছরের বড় এই রাজনীতিবিদকে বিয়ের করে জীবনে কোন মুহূর্তের জন্য নিজেকে একা মনে করেননি বিদিশা। যদিও দীর্ঘ আলোচনা সাপেক্ষে তাদের বিয়ে হয় লন্ডনে। বিয়ের পর অল্প দিনের সংসার জীবনে স্বামী এরশাদের সাথে সময়টা বড্ড ভালো কেটেছে বিদিশার, এমনটাই ফেসবুকে লিখেছেন তিনি। এরশাদে প্রশংসা করেই ক্ষান্ত হননি বিদিশা, তিনি লিখেছেন, অকল্পনীয় রোমান্টিক এই মানুষকে আমার অসাধারণ লাগে, এবং প্রাণোচ্ছ্বল এরশাদের মুখে বয়সের ছাপ, রোগাক্লান্ত, হাসপাতালে আইসিউতে
দিনের বেলায় সংবাদকর্মী আর রাতে ডাকাত

দিনের বেলায় সংবাদকর্মী আর রাতে ডাকাত

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক:: গলায় ঝোলানো সংবাদপত্রের আইডি কার্ড। সঙ্গে একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা। দেখলে মনে হবে সে একজন সংবাদকর্মী। আসলে সে একজন ডাকাত সর্দার। বাড়ি নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের বরপা আটিপাড়া। তার নাম মো. হোসেন আলী। সে ঢাকা থেকে প্রকাশিত 'দেশ' পত্রিকার ফটোসাংবাদিক পরিচয় দেয়। যে বাড়িতে ডাকাতি করবে সে বাড়িতে সাংবাদিক পরিচয়ে দিনের বেলায় র‌্যাকি করে আসত। কারও যাতে সন্দেহ না হয় তাই এমন পেশা বেছে নিয়েছে। এমন একজন ডাকাতকে গ্রেফতার করেছে সোনারগাঁ থানা পুলিশ। গ্রেফতারের পর পুলিশের চোখ ফাঁকি দেওয়ার জন্য কার্ডও দেখিয়েছিল। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। সোনারগাঁয়ের শম্ভুপুরা ইউনিয়নের ভিটিকান্দি এলাকায় ডাকাতির ঘটনায় বারদি এলাকা থেকে গ্রেফতার হয় মো. হোসেন আলী। হোসেন একজন পেশাদার ডাকাত। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে সে ডাকাতির কথা স্বীকার করেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. কাউসার আহম্মেদের আদালত
অবহেলায় সিরাজউদ্দৌলা-যত্নে আছে মীর জাফর!

অবহেলায় সিরাজউদ্দৌলা-যত্নে আছে মীর জাফর!

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্কঃ বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলা। স্বাধীনতা রক্ষায় যুদ্ধ করে তিনি ষড়যন্ত্রের শিকার হন, প্রাণ হারান আঁততায়ীর হাতে। আর এসবের পেছনে মূল কলকাঠি নাড়েন বিশ্বাসঘাতক মীর জাফর। মৃত্যুর পরেও এই বীর নবাবের প্রতি যথাযথ সম্মান দেখানো হচ্ছে না। চরম অবহেলা ও অযত্নে রয়েছে তার সমাধিস্থল। অন্যদিকে ব্রিটিশদের সঙ্গে আঁতাত করা মীর জাফর, তার তিন স্ত্রী এবং বংশধরদের কবরস্থান বেশ সংরক্ষিত অবস্থায় রয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে। ইতিহাসের ঘৃণিত ব্যক্তি মীর জাফর ১৭৫৭ সালে ইংরেজদের সঙ্গে গোপন চুক্তি করে বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলাকে হত্যা করে ক্ষমতায় আসেন। তার মৃত্যুর পর তিন স্ত্রী ও ১১০০ বংশধরকে মুর্শিদাবাদের জাফরাবাদে কবর দেওয়া হয়। তার কবরস্থানটি অত্যন্ত সুরক্ষিত। দর্শনার্থীদের ভারতীয় ১৫ টাকা টিকিট কেটে সেখানে প্রবেশ করতে হয়, প্রবেশপথটিও যথেষ্ট সুরক্ষিত। সেখ
ডেঙ্গুর চিকিৎসায় অধিকতর সতর্কতা জরুরি

ডেঙ্গুর চিকিৎসায় অধিকতর সতর্কতা জরুরি

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক :: ডা. খান আবুল কালাম আজাদ :: ডেঙ্গুর গতি-প্রকৃতিতে পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে। আগে টাইপ ১ ও ৪ বেশি হলেও গত বছর থেকে দেখা গেল টাইপ ৩ মারাত্মকভাবে আক্রমণ করল। ফলে সবাইকে এ ব্যাপারে সচেতন ও সতর্ক থাকতে হবে। এর সঙ্গে বিশেষভাবে চিকিৎসকদের খেয়াল রাখা উচিত যে ডেঙ্গু রোগী হলেও যেন ডেঙ্গুর চিকিৎসা নিয়েই আমরা লেগে না থাকি, ওই রোগীর আরো কোনো সমস্যা বা জটিলতা আছে কি না, সেটাও গভীরভাবে খেয়াল রাখতে হবে। রক্ত দেওয়ার আগে ভালো করে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে। রোগীর রক্তের প্রয়োজন কতটুকু, যারা মুখে খেতে পারে তাদের আইভি ফ্লুইড দেওয়ার আদৌ প্রয়োজন আছে কি না, স্টেরয়েড ও অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়ার আগেও খুব ভালোভাবে বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণ করা জরুরি। যিনি মুখে খাওয়ার ক্ষমতা রাখেন তাঁকে কেন আমি আইভি দেব? এমন হলে রোগীর জটিলতা বা বিপদ বাড়বে। এ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে সরকারি-বেসরকারি সব হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স
‘মোদী’ আম!!

‘মোদী’ আম!!

এক্সক্লুসিভ
নিউজ ডেস্ক :: গরম আর আম যেন একে অপরের পরিপূকরক। তেমনই মাস খানেক আগে প্রকৃতির সঙ্গে তাল মিলিয়ে গরম ছিল ভোটের আবহাওয়াও। নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে লোকসভা নির্বাচনে আবার ক্ষমতায় এসেছে বিজেপি। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত হয়েছেন নরেন্দ্র মোদী। এবার তাকে স্বরণীয় রাখতে ‘মোদী’র নামে নামকরণ করা হয়েছে একটি বিশেষ জাতের আমের। ‘মোদী আম’ নামে পরিচিত এ আম এখন ভারতের বাজারে হিট। মোদী আমের কারিগর পদ্মশ্রী উপাধীতে ভূষিত মুসলমান আমচাষী হাজি কালিমুল্লাহ। জানা গিয়েছে, লক্ষ্ণৌ-এর প্রত্যন্ত এলাকার আম চাষী কালিমুল্লাহ তাঁর ফলানো আমের নাম রেখেছেন মোদীর নামে। তিনি একটি সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, দেশের প্রধানমন্ত্রী মোদীর ব্যক্তিত্বে তিনি মুগ্ধ। তাই তাঁর ফলানো আমের নাম তিনি তাঁর নামেই রেখেছেন। এখানেই শেষ নয়। স্বাভাবিকভাবেই মনে প্রশ্ন জাগতে পারে যে কেমন হবে 'মোদী' আমের স্বাদ। এই প্রসঙ্গে তিন
আজ অপেক্ষার ২২ বছর!!

আজ অপেক্ষার ২২ বছর!!

এক্সক্লুসিভ
কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:: মাগুরছড়া ট্রাজেডির ২২ বছর পূর্ন হলো আজ। ১৪ জুন আসলেই কমলগঞ্জবাসী তথা মৌলভীবাজার জেলাবাসীকে মনে করিয়ে দেয় সেই ভয়াল স্মৃতির কথা। সেদিন মানুষের মন কত ভীত ছিল। জনমনে আতঙ্ক ছিল কখন এসে আগুনের লেলিহান শিখা গ্রাস করে ফেলবে। ১৯৯৭ সালের ১৪ জুন মধ্য রাত ১টা ৪৫ মিনিটে মাগুরছড়া গ্যাসকূপে বিস্ফোরণের প্রচণ্ড শব্দে কেঁপে ওঠে ছিল গোটা কমলগঞ্জ। আগুনের লেলিহান শিখায় লাল হয়ে উঠেছিল মৌলভীবাজার জেলার সুনীল আকাশ। ভীত-সন্ত্রস্ত লোকজন ঘরের মালামাল রেখে প্রাণভয়ে ছুটে ছিল দিগ্বিদিক। প্রায় ৫০০ ফুট উচ্চতায় লাফিয়ে উঠা আগুনের লেলিহান শিখায় লণ্ডভণ্ড করে দিয়েছিল বিস্তীর্ণ এলাকা। আগুনের শিখায় গ্যাসফিল্ড সংলগ্ন লাউয়াছড়া রিজার্ভ ফরেস্ট, মাগুরছড়া খাসিয়াপুঞ্জি, জীববৈচিত্র্য, বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন, ফুলবাড়ী চা বাগান, সিলেট-ঢাকা ও সিলেট- চট্টগ্রাম রেলপথ এবং কমলগঞ্জ-শ্রীমঙ্গল সড়কে ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হ